‘অভিমানে’ দুই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর মঙ্গলবার দুপুরে ঘোষণা হয়েছে সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি। শুধু সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করে ওই দুটি ইউনিট কমিটির অনুমোদন দেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য।

জয় ও লেখক স্বাক্ষরিত প্যাডে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খান, বিপ্লব কান্তি দাস, মুহিবুর রহমান মুহিব, কনক পাল অরূপের নাম ঘোষণা করা হয়।

পাশাপাশি জয় ও লেখক স্বাক্ষরিত ছাত্রলীগের প্যাডে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে আসে হোসাইন মোহাম্মদ সাগর ও সঞ্জয় পাশী জয়ের নাম।

এদিকে কমিটি ঘোষণার ঘণ্টা না পেরুতেই জেলা কমিটির প্যাডে উল্লেখিত কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য পদ পাওয়া চারজনের মধ্যে মুহিবুর রহমান মুহিব ও জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খান তাদের পদ প্রত্যাখ্যান করেছেন।

জানা গেছে, মুহিবুর রহমান মুহিব ছিলেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক। বর্তমানে নবগঠিত কমিটির সভাপতি হিসেবে আনোয়ারুজ্জামান বলয় থেকে দৌড়ে থাকলেও অবশেষে স্থান হয় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে। তবে ‘অভিমানি’ মুহিব নিজেকে কেন্দ্রীয় কমিটির যোগ্য মনে করছেন না। তাই ‘স্বেচ্ছায় অব্যাহতি’ নিয়েছেন উল্লেখ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দিয়েছেন।

তিনি লিখেন, ‘আমাকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সদস্য করায় আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সম্মানিত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কাছে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমি ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বাস ‌করি, আমি এই বিশাল পদের যোগ্য নই। তাই, আমি স্বেচ্ছায় এই পদ থেকে অব্যাহতি নিলাম।’

মুহিবুর রহমান মুহিবের মতো ‘অভিমানে’ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে ‘স্বেচ্ছায় অব্যাহতি’ নিয়েছেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাওয়াদ খান। সদ্য ঘোষিত কমিটিতে জাওয়াদ খানকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য মনোনীত করা হয়। কিন্তু কমিটি ঘোষণার পরপর কেন্দ্রীয় সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দেন তিনি।

এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে জাওয়াদ লিখেন, ‘প্রিয় সতীর্থ, সহযোদ্ধা শুভাকাঙ্খী, সদ্য ঘোষিত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানতে পারলাম আমাকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য মনোনীত করা হয়েছে। আমি উক্ত সদস্য পদ প্রত্যাখ্যান করলাম। রাজনীতি থেকে যখন অপরাজনীতি শক্তিশালী হয়ে যায় তখন আমার মতো কর্মীর কাছে প্রত্যাখ্যান করা ছাড়া বিকল্প কোন উপায় থাকে না। প্রিয় সহযোদ্ধারা, দেখা হবে রাজপথে…’।

জানা গেছে, জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খান সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন খান এর ভাতিজা। চাচার বলয় থেকে তিনি নতুন জেলা কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী ছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত পছন্দের পদ না পাওয়ায় তিনি কেন্দ্রীয় সদস্যপদ প্রত্যাখ্যান করেছেন।

এর আগে দুপুরে সিলেট জেলা ছাত্রলীগে নাজমুল হোসেনকে সভাপতি ও রাহেল সিরাজকে সাধারণ সম্পাদক এবং সিলেট মহানগর ছাত্রলীগে কিশওয়ার জাহান সৌরভকে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নাইম আহমদের নাম ঘোষণা করা হয়।