শাহজালাল (রহ.) মাজারের লাকড়ি তোড়া উৎসব

স্বল্প পরিসরে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে উদযাপন করা হয়েছে শাহজালাল (রহ.) মাজারের লাকড়ি তোড়া উৎসব। প্রতিবছরই শাহজালাল (র.) মাজারে ওরসের আগে লাকড়ি তোড়া উৎসব পালন করা হয়। প্রতিবছরই এতে অসংখ্য ভক্ত অনুরাগী অংশ নেন। তবে গত বছর থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সল্প পরিসরে এই উৎসব উদযাপন করা হচ্ছে। এবারও সল্প পরিসরে কেবল রেওয়াজ রক্ষার জন্য এ উৎসব পালন করা হলো।

মঙ্গলবার (৮ জুন) লাকড়ি তোড়া উৎসব পালন করা হয়। এবার হযরত শাহজালাল (রহ.) এর দরগাহে ৭০২ তম বার্ষিক ওরস উপলক্ষে লৌকিক উৎসব ‘লাকড়ি তোড়া’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে এবারের ওরস হবে কী না এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানান হযরত শাহজালাল (র.) মাজার শরীফের খাদেম সামন মাহমুদ খান।

তিনি জানান, আজ শাহজালাল মাজার শরীফের ওরস উপলক্ষে লাকড়ি তোরা উৎসব পালিত হয়েছে। তবে গত বছরের মতো এবারও করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় হযরত শাহজালাল (র.) মাজার শরীফের ওরস অনুষ্ঠান নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আগামি শনিবার (১২ জুন) সাংবাদিকদের নিয়ে একটি মতবিনিময় সভার মাধ্যমে লিখিত আকারে জানানো হবে।

জানা যায়, শাহজালাল (রহ.) এর জীবদ্দশায় এভাবে লাকড়ি সংগ্রহ করে রান্না করা হতো। সেই ঐতিহ্য রক্ষা করে ৭০০ বছর ধরে ওরসের তিন সপ্তাহ আগে লাকড়ি তোড়া সম্পন্ন হয়ে আসছে। এসব সংগ্রহ করা লাকড়ি নির্দিষ্ট স্থানে জমা করে রাখা হয়। আর এসব লাকড়ি দিয়েই ওরসে শিরনির রান্না করা হয়ে থাকে।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, প্রায় ৭০০ বছর আগে সিলেট বিজয় দিবসের কয়েক দিন ২৬ শাওয়ালের এই দিনের আগে এক কাঠুরে আসেন হযরত শাহজালাল (রহ.) এর কাছে। কাঠুরে জানান-ঘরে তার বিবাহযোগ্য ৫ মেয়ে রয়েছে। সে কাঠুরে নিচু জাতের হওয়ায় কেউই তার মেয়েদের বিয়ে করতে চাইছে না। এ কথা শুনে শাহজালাল (রহ.) কাঠুরেকে সিলেট বিজয় দিবসে দরগায় আসার কথা বলেন।

পরবর্তী সিলেট বিজয় দিবসে সঙ্গী আউলিয়া,ভক্ত ও আশেকানরা আসলে শাহজালাল (রহ.) সবাইকে নিয়ে লাক্কাতুড়া বাগানে গিয়ে কাঠ সংগ্রহ করেন। ফিরে এসে তিনি উপস্থিত ভক্তদের কাছে জানতে চান তারা আজ কি কাজ করেছে। উত্তরে সবাই বলেন তারা আজ কাঠুরিয়ার কাজ করেছে।

এরপর শাহজালাল সবাইকে কাঠুরের দুঃখের কথা বললে উপস্থিত অনেক ভক্ত কাঠুরের মেয়েদের বিয়ে করার আগ্রহ প্রকাশ করেন। সেখান থেকে কাঠুরে তার মেয়েদের জন্য বর পছন্দ করেন। এ ঘটনার পর থেকে সাম্য ও শ্রেণী বৈষম্য বিরোধী দিবস হিসেবেও দিনটি পালন করেন ভক্তরা।