বসবাস অযোগ্য শহরের তালিকায় ৪ নম্বরে ঢাকা

প্রকাশিত: জুন ৯, ২০২১

করোনার প্রকোপ সামলানো থেকে শুরু করে মৌলিক অধিকার প্রাপ্তির সূচক বিবেচনায় ঢাকাবাসীর ভাগ্যে এবারও ‘উন্নতি হয়নি’। ইকোনোমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের ২০২১ সালের বসবাসযোগ্য শহরের তালিকায় ১৪০টি শহরের মধ্যে ঢাকার অবস্থান ১৩৭তম। অর্থাৎ, বসবাস অযোগ্য শহরের তালিকায় ঢাকা চতুর্থ।

এ বছর ৩৩ দশমিক পাঁচ পয়েন্ট নিয়ে সর্বশেষ ঘোষিত তালিকার চেয়ে একধাপ এগিয়েছে ঢাকা। ২০১৯ সালে তালিকার ১৩৮ নম্বরে থাকলেও এবার রয়েছে ১৩৭ নম্বরে। এর আগে ২০১৮ সালে ঢাকা ছিল এই তালিকার ১৩৯তম শহর।

করোনা মহামারির কারণে লকডাউন থাকা শহরের তথ্য সংগ্রহ করতে না পারায় ২০২০ সালের তালিকা করার কাজ বাতিল করে ইকোনোমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট। করোনা মহামারির কারণে এই তালিকায় এসেছে বেশ পরিবর্তন।

রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভিয়েনাকে টপকে এবারের বসবাস যোগ্য শহরের তালিকায় প্রথম স্থানে রয়েছে অকল্যান্ড। স্থিতিশীলতা, স্বাস্থ্যসেবা, সংস্কৃতি ও পরিবেশ, শিক্ষা এবং অবকাঠামোর ওপর ভিত্তি করে ১৪০টি শহরের এই তালিকা তৈরি করে। এ বছর ঢাকা স্থিতিশীলতায় ৫৫, স্বাস্থ্যসেবায় ১৬ দশমিক সাত, সংস্কৃতি ও পরিবেশে ৩০ দশমিক আট, শিক্ষায় ৩৩ দশমিক তিন এবং অবকাঠামোতে ২৬ দশমিক আট পয়েন্ট পেয়েছে।

শেষদিক থেকে শীর্ষে রয়েছে সিরিয়ার দামেস্ক (১৪০তম), নাইজেরিয়ার লেগোস (১৩৯তম), পিএনজির পোর্ট মরেসবি (১৩৮তম), বাংলাদেশের ঢাকা (১৩৭তম), আলজেরিয়ার আলজিয়ার্স (১৩৬), লিবিয়ার ত্রিপলি (১৩৫তম), পাকিস্তানের করাচি (১৩৪তম), জিম্বাবুয়ের হারারে (১৩৩তম), ক্যামেরুনের দোআলা (১৩২তম) এবং ভেনেজুয়েলার কারাকাস (১৩১তম)। তালিকায় সবচেয়ে বেশি উন্নতি করেছে জার্মানির হামবুর্গ। ৩৪ধাপ এগিয়ে তারা এখন ৪৭ নম্বরে।

২০১৮ এবং ২০১৯ সালের তালিকায় শীর্ষে থাকা অস্ট্রিয়ার ভিয়েনা এবার শীর্ষ দশ থেকেই ছিটকে গেছে। করোনায় ভুগতে থাকা শহরটির অবস্থান এবার ১২তম। এ বছরের তালিকায় নিউজিল্যান্ডের আরেকটি শহর ওয়েলিংটন যৌথভাবে চতুর্থ।

শীর্ষ ১০ দেশে রয়েছে অকল্যান্ড (নিউজিল্যান্ড), ওসাকা (জাপান), অ্যাডিলেড (অস্ট্রেলিয়া), ওয়েলিংটন (নিউজিল্যান্ড), টোকিও (জাপান), পার্থ (অস্ট্রেলিয়া), জুরিখ (সুইজারল্যান্ড) জেনেভা (সুইজারল্যান্ড), মেলবোর্ন (অস্ট্রেলিয়া) এবং ব্রিসবেন (অস্ট্রেলিয়া)।