সোনা ঝরছে কৃষকের সোনালী আঁশে

প্রকাশিত: আগস্ট ৮, ২০২১

এবার সোনা ঝরছে কৃষকের সোনালী আঁশ পাটে। হাসি ফুটেছে তাদের মুখে। মৌসুমের শুরুতেই ভালো দামে বিক্রি হচ্ছে পাট।

বাজারে প্রতি মন পাট বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার টাকার উপরে। এতেই স্বস্তি ফিরেছে কৃষকদের সোনালী আঁশে। গত মৌসুমেও পাটের ভাল দাম ছিলো, সে ধারাবাহিকতায় এবারও কৃষকেরা মাঠ জুড়ে করেছে পাটের চাষ। কাটা-ধোয়ার পর তা বাজারে উঠতেও শুরু করেছে। তবে পানির স্বল্পতায় পাট পঁচানো ও ধোয়ার কাজে বেগ পেতে হচ্ছে কৃষকদের, দিতে হচ্ছে বাড়তি মুজরি ও শ্রম।

জেলার অন্যতম পাট বাজার ঝিনাইদহের শৈলকুপা ঘুরে দেখা গেছে ক্রেতা-বিক্রেতা আর ব্যাপারীদের ভিড় বাজার জুড়ে। সপ্তাহের শনি ও মঙ্গলবার সাপ্তাহিক পাটের হাট বসে শৈলকুপার নতুন বাজারে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ব্যাপারিরা এখান থেকে ট্রাক ভরে পাট নিয়ে যায় বিভিন্ন এলাকায়। খুলনা, নারায়ণগঞ্জ, পাবনা, ঢাকাসহ দেশের নানা জেলাতে যায় এ অঞ্চলের পাট।

কৃষকরা জানায়, এবার ১ বিঘা জমিতে পাট চাষ ও কাটা-ধোয়া করতে ১৮ থেকে প্রায় ২০ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। বিঘা প্রতি এবার ফলন হয়েছে ১০ মণের উপরে। সে হিসাবে ১ মণ পাটের দাম ৩ হাজার টাকা দরে তারা বিঘা প্রতি ৩০ হাজার টাকার পাট বিক্রি করতে পারছে। অবশ্য একটু নিম্নমানের পাট হলে ২৫শ’ থেকে ২৮/২৯ শ’ টাকায় বিক্রি করতে পারছে। আর মধ্যম মানের পাট ৩ হাজার টাকা দরে আবার পাটের রঙ উন্নত মানের হলে মন প্রতি ৩ হাজার ১শ’ টাকা দরেও বিক্রি হচ্ছে। গড় হিসাবে মণ প্রতি পাটের দাম ৩ হাজার টাকা থাকছে।

শৈলকুপা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আকরাম হোসেন জানান, এবার উপজেলায় মোট ৮ হাজার ৩ শত ৮০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। ফলন তুলনামূলক ভালো হয়েছে।