ত্বকের যত্নে লেবুর খোসা

প্রকাশিত: আগস্ট ১৭, ২০২১

লেবু ব্যবহারের পর তার খোসা দিয়ে আর কী কাজ! সোজা চলে যায় ডাস্টবিনে। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আমরা এই ভুল করি, অনেক সবজি ও ফলের খোসা না জেনেই ফেলে দিই। অথচ সেসব খোসায় থাকে প্রচুর উপকারী উপাদান। লেবুতে যতটা উপকারিতা রয়েছে, ততটা রয়েছে এর খোসায়ও। তাহলে লেবু কাজে লাগালেও এর খোসা কেন ফেলে দেবেন? ত্বক ভালো রাখতে ব্যবহার করতে পারেন বাতিল বলে ফেলে দেওয়া লেবুর খোসা।

লেবুর খোসা শুকিয়ে নিয়ে গুঁড়া করে তার সঙ্গে বিভিন্ন প্রাকৃতিক উপাদান মিশিয়ে তৈরি করতে পারেন ফেসপ্যাক। এতে ত্বকে পৌঁছাবে ভিটামিন সি এবং ফাইবারসহ একাধিক উপকারী উপাদান। ফলে ত্বক তো উজ্জ্বল হবেই, সেইসঙ্গে ত্বকের দাগ-ছোপ দূর হবে দ্রুত। ত্বক কোমল করতেও লেবুর খোসা বিশেষ উপকারী। ত্বকের হারানো লাবণ্য ফিরিয়ে আনতে চাইলে লেবুর খোসা ফেলে না দিয়ে এভাবে কাজে লাগাতে পারেন-

লেবুর খোসা, চন্দন ও অ্যালোভেরা জেল

এক চামচ করে লেবুর খোসার গুঁড়া, চন্দন গুঁড়া ও অ্যালোভেরা জেল নিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করে নিন। মিশ্রণটি পুরো মুখে লাগিয়ে মিনিট বিশেক অপেক্ষা করুন। এরপর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। এভাবে সপ্তাহে তিনদিন ব্যবহার করলে বাড়বে ত্বকের সৌন্দর্য। ত্বকের হারিয়ে যাওয়া আর্দ্রতা ফিরে পাবেন সহজেই। পাশাপাশি ত্বক হবে কোমল।

টক দই ও লেবুর খোসা

ত্বকের সৌন্দর্য বাড়াতে চাইলে এক চা চামচ লেবুর খোসা গুঁড়া, দুই চা চামচ টক দই মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। এরপর পুরো মুখে ভালোভাবে লাগিয়ে ফেলুন। এভাবে বিশ মিনিট রেখে ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। সপ্তাহে দুইবার এই প্যাক ব্যবহার করলে ত্বকের সৌন্দর্য বাড়বে, দূর হবে দাগ-ছোপ। রোদে পোড়া দাগ দূর করতেও এই প্যাক কার্যকরী।

লেবুর খোসা, বেসন ও দুধ

দুধ এবং বেসন ত্বকের জন্য বেশ উপকারী। রূপচর্চার কাজে এই দুই উপাদানের ব্যবহার বেশ পুরোনো। আপনি যদি এর সঙ্গে লেবুর খোসা মেশান তবে তা আরও বেশি কার্যকরী হয়ে উঠবে। ত্বকের উপর জমে থাকা মৃত কোষ উঠে যাবে, বাড়বে ত্বকের লাবণ্য। চেহারায় বয়সের ছাপও পড়বে না। মিশ্রণটি তৈরির জন্য এক চা চামচ লেবুর খোসার গুঁড়ার সঙ্গে আধা চা চামচ বেসন দুই চা চামচ কাঁচা দুধ মিশিয়ে নিন। এবার পুরো মুখে ভালোভাবে লাগান। মিনিট বিশেক পর পরিষ্কার পানিতে ধুয়ে নিন। এভাবে সপ্তাহে তিনদিন ব্যবহার করবেন।